নড়াইলে মাদক মামলায় এক নারীকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত। পাশাপাশি ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও এক বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ডাদেশ দেওয়া হয়েছে। অপর একটি ধারায় তিন বছরের কারাদণ্ড এবং এক হাজার টাকা জরিমানা করা হয়, অনাদায়ে আরও এক মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ডাদেশ দেওয়া হয়। মামলার অন্য তিন আসামিকে খালাস দেওয়া হয়েছে।

আজ বুধবার সকাল ১০টায় জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মুন্সী মো. মশিয়ার রহমান এ আদেশ দেন। খবর বাসসের।

দন্ডপ্রাপ্ত নারীর নাম রিক্তা পারভীন। তিনি নড়াইল সদর উপজেলার লস্কারপুর গ্রামের শহিদুল মেম্বরের স্ত্রী। এই মামলার অন্য তিন আসামি সুরভী খাতুন, শহিদুল ইসলাম মেম্বর ও বাশার শেখকে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় বেকসুর খালাস দেওয়া হয়।

মাদক মামলায় রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করে জেলা জজকোর্টের পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট এমদাদুল ইসলাম বলেন, ১৯৯০ সালের মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে এ কারাদণ্ডাদেশ দেওয়া হয়।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, নড়াইলের ডিবি পুলিশ ২০১৫ সালের ৮ সেপ্টেম্বর দুপুরে সদর উপজেলার লস্কারপুর গ্রামের শহিদুল মেম্বরের বাড়িতে অভিযান চালায়। এ সময় আসামি রিতা পারভীনকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাঁর দেওয়া তথ্যমতে রান্নাঘরের মধ্য থেকে মাটিতে পুঁতে রাখা ৬৪ বোতল ফেনসিডিল ও ৩০০ গ্রাম গাঁজা উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায় সদর থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করা হয়। দীর্ঘ শুনানি শেষে মামলায় ১৬ জনের সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে আদালত এ রায় দেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে