এক কিশোরীকে টিকটক সেলিব্রিটি বানানোর প্রলোভন দেখিয়ে অপহরণ ও ধর্ষণের অভিযোগে প্রধান অভিযুক্ত ও তাঁর সহযোগীকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা তেজগাঁও বিভাগ।

গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলেন মূল অভিযুক্ত দিনার ও সহযোগী মেহেদী হাসান মাহি। এ ঘটনায় উদ্ধার হওয়া ভুক্তভোগীকে ডিএমপির ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে।

শুক্রবার (১২ নভেম্বর) ডিএমপির পক্ষ থেকে জানানো হয়, বৃহস্পতিবার (১১ নভেম্বর) ধারাবাহিক অভিযান চালিয়ে খিলগাঁও এবং বনানী থেকে মাহি ও দিনারকে গ্রেপ্তার করে ডিএমপির সংঘবদ্ধ অপরাধ, গাড়ি চুরি প্রতিরোধ ও উদ্ধার টিম।

অভিযানে নেতৃত্বে দেওয়া গোয়েন্দা তেজগাঁও বিভাগের সহকারী পুলিশ কমিশনার হাসান মুহাম্মদ মুহতারিম বলেন, ভুক্তভোগী নিখোঁজ হয়েছেন এমন অভিযোগে সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন তাঁর ভাই। এর পরিপ্রেক্ষিতে ছায়া তদন্ত শুরু করে গোয়েন্দা তেজগাঁও বিভাগ। তদন্তের একপর্যায়ে বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে খিলগাঁও তালতলা মার্কেট এলাকা থেকে ভুক্তভোগীকে উদ্ধার করা হয়। পরে ভুক্তভোগীর দেওয়া তথ্য ও তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় খিলগাঁও তালতলা এলাকা থেকে মূল অভিযুক্তের সহযোগী মাহিকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাঁর দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে বনানী থেকে মূল অভিযুক্ত দিনারকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

তিনি জানান, একটি অসাধু চক্র উঠতি বয়সী মেয়েদের সঙ্গে ফেসবুকে ফ্রেন্ডশিপ করে। এরপর তাঁদের টিকটক সেলিব্রিটি বানানোর প্রলোভন দেখিয়ে অপহরণ করে আটকে রেখে ধর্ষণ করে। এরপর তাঁদের আপত্তিকর ছবি ও ভিডিও ধারণ করে ব্ল্যাকমেইল করা হয়।

চক্রের অন্য সদস্যদের গ্রেপ্তার করতে অভিযান অব্যাহত আছে জানিয়ে পুলিশের এই কর্মকর্তা বলেন, গ্রেপ্তার আসামিদের বিরুদ্ধে হাতিরঝিল থানায় সংশ্লিষ্ট আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে