ইউরোপের বিভিন্ন দেশে করোনার সংক্রমণ আবার বাড়তে শুরু করেছে। পরিস্থিতি মোকাবিলায় দেশগুলো ধীরে ধীরে কঠোর পদক্ষেপ নিতে শুরু করেছে। একই সঙ্গে টিকাদান কর্মসূচিও জোরদার করা হচ্ছে।

চীনের বার্তা সংস্থা সিনহুয়ার বরাত দিয়ে বাসস এ কথা জানিয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সাপ্তাহিক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইউরোপে সাত দিনে প্রতি এক লাখে নতুন করে ২৩০ জন করোনায় সংক্রমিত হয়েছে। বিশ্বে এটি সর্বোচ্চ।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বিশ্বে মহামারির মূল কেন্দ্র এখন ইউরোপ। শীতের শুরুতে করোনা মোকাবিলায় নানা বিধিনিষেধে শিথিলতা এবং টিকা প্রদানে অপর্যাপ্ততার কারণে সংক্রমণ বাড়ছে।

জার্মান রোগ নিয়ন্ত্রণ সংস্থা রবার্ট কোচ ইনস্টিটিউট গতকাল শুক্রবার বলেছে, দেশটিতে এক দিনে ৫২ হাজার ৯৭০ জন নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং মারা গেছেন ২০১ জন।

অষ্ট্রিয়ার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে শুক্রবার বলা হয়েছে, দেশটিতে এক দিনে ১৫ হাজার ৮০৯ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন, যা মহামারি শুরুর পর সর্বোচ্চ।

এ ছাড়া সম্প্রতি ব্রিটেন, ফ্রান্স, পোল্যান্ড, হাঙ্গেরি, স্লোভেনিয়া, গ্রিস, নেদারল্যান্ডস, আয়ারল্যান্ডসহ ইউরোপের অন্যান্য দেশে করোনা সংক্রমণ বেড়েছে।
এদিকে অষ্ট্রিয়ান সরকার শুক্রবার মহামারি নিয়ন্ত্রণে ২২ নভেম্বর থেকে দেশব্যাপী লকডাউন জারি করেছে। এ ছাড়া টিকা দেওয়াও বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

জার্মানির পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষ শুক্রবার সংক্রমণ সুরক্ষা আইনের সংশোধন অনুমোদন করেছে। মহামারি নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যেই এই আইন সংশোধন করা হয়েছে।

নেদারল্যান্ডস করোনা মোকাবিলায় তিন সপ্তাহের কঠোর পদক্ষেপ ঘোষণা করেছে। এ ছাড়া করোনার টিকা দেওয়ার কর্মসূচিও জোরদার করা হয়েছে।
এ ছাড়া ইতালি, গ্রিস, হাঙ্গেরি, সুইডেন, ক্রোয়েশিয়া ও স্লোভেনিয়ায় লোকজনকে টিকা নেওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে